FAIR_INFORMER
https://avalanches.com/bd/jhenida__1899244_04_10_2021

রাস্তা ঠিক করে দিলেন মোজাম্মেল হক শাহিন


রাস্তাঘাট ভাঙ্গা কিংবা জলাশয় এমন দুর্ভোগ আমার প্রাণে নাহি সয়।

-মোজাম্মেল হক শাহিন (চেয়ারম্যান পদ প্রার্থী ৬নং চিতড্ডা ইউনিয়ন)


চিতড্ডা ইউনিয়ন এবং ঝলম ইউনিয়নের প্রাণকেন্দ্র ঝলম উত্তর বাজার থেকে সাইলঁচো গ্রামের মোড় পর্যন্ত রাস্তার বেহাল দশা ছিল দীর্ঘদিন যাবত।প্রতিদিন দুর্ঘটনার স্বীকার হতো পথচারীরা,এই রাস্তাটি চলার অনুপযোগী হয়ে উঠেছিল।সাধারণ মানুষ সামাজিক যোগাযোগে বিষয়টি তুলে ধরেছিল,এই বিষয় নজরে আসার সাথে সাথে আসন্ন ৬ নং চিতড্ডা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদ প্রার্থী প্রিয় নেতা নাসিমুল আলম চৌধুরি নাজমুল এমপি মহোদয়ের বিস্বস্থ ভ্যানগার্ড মোজাম্মেল হক শাহিন ভাই রাস্তায় ইট-কংক্রিট ফেলে চলার উপযোগী করে তুলেছে।


চেয়ারম্যান পদ প্রার্থী মোজাম্মেল হক শাহিন ভাই বলেন জনগণের চাওয়া পাওয়া পূরণ করাই আমার দায়িত্ব।


কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি মানুষের পাথে থেকে সেবা করে যাওয়া জনদরদী নেতা মোজাম্মেল হক শাহিন ভাইয়ের প্রতি।আমরা ৬ নং চিতড্ডা ইউনিয়নবাসী এমন যোগ্য চেয়ারম্যান'ই চাই।


SHOW_MORE
0
116
https://avalanches.com/bd/jhenida__965948_31_10_2020
https://avalanches.com/bd/jhenida__965948_31_10_2020

ঝিনাইদহের শৈলকূপার বিশিষ্ট সমাজ সেবক রাজনীতিবীদ সাবেক তখোড় ছাত্রনেতা মোঃ মাহিদুর রহমান মাসুদের জন্মদিন আজ।

১৯৬৫ সালের ৩১ শে অক্টোবর মোঃ মাহিদুর রহমান মাসুদ শৈলকুপা পৌর এলাকার উত্তর পাড়া গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আতিয়ার রহমান মাস্টার এবং মাতার নাম মোছাঃ শাহেরা খাতুন। তার দাদার বাবা প্রয়াত মাদু মন্ডল শৈলকুপা মৌজায় অর্ধ শতাধিক একর ব্যক্তিগত জমির মালিকানাধীন ছিলেন এবং অধিক সম্পদের অধিকারি ছিলেন। তত্বকালীন সময় থেকে শৈলকুপার অত্র অঞ্চলে তাদের পরিবারের আধিপত্য ছিলো। উল্লেখ্য তার দাদার পিতা মাদু মন্ডল শৈলকুপার হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্যেমণি হয়ে ছিলেন এবং তার দাদা মোবারক মন্ডল অত্র এলাকার মাতবর এবং ধার্মিক ব্যক্তি হিসাবে পরিচিত ছিলেন। অত্র এলাকার মসজিদ নির্মাণ থেকে শুরু করে ধর্মীয় ও সামাজসেবামুলক কাজ তার দাদা — নানার হাত ধরে শুরু হয় এবং তার এই ধারাবাহিকতায় তার পিতা প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা আতিয়ার রহমান মাস্টার জীবদ্দশায় বর্ণাঢ্য সম্মাননা অর্জন করেন। তার পিতা একজন স্বনামধন্য ক্রীড়াবিদ ও ক্রীড়া শিক্ষক এবং বিশিষ্ট রাজনীতিবীদ হিসেবে উপজেলা জুড়ে তাঁর খ্যাতি ছিল। তার পিতা ১৯৫৪ সালের যুক্তফ্রন্ট নির্বাচনী প্রচারণার মাধ্যমে রাজনিতিতে প্রবেশ করেন এবং ১৯৫৪-৭১ সাল পর্যন্ত সকল আন্দোলন সংগ্রামে সক্রিয় ভুমিকা রাখেন। তার পিতা মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ছিলেন এবং সাবেক এম পি মরহুম ডাঃ কাজী খাদেমুল ইসলামের ঘনিষ্ট সহচর হিসেবে শৈলকুপার বিভিন্ন সামাজিক কাজে তাঁর পিতার অগ্রণী ভূমিকা ছিল এবং তার ফলশ্রুতিতেই কয়েকবার জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কাছে গিয়ে রাজনৈতিক পরামর্শ গ্রহণ ও দেখা করা সুযোগ হয়েছিল।

জননেত্রী শেখ হাসিনা প্রথম যখন শৈলকুপা সাংগঠনিক কাজে আসেন তখন তার পিতা মোঃ আতিয়ার রহমান মাস্টার শৈলকূপা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে শেখ হাসিনার সাথে মঞ্চে থেকে বক্তিতা প্রদান করেন এবং সভা পরিচালনা করেন। বর্তমান এম,পি আব্দুল হাই সাহেবকে প্রথম শৈলকুপা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের কোন এক বিশেষ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে দাওয়াত দিয়ে নিয়াসেন এবং ঐ অনুষ্ঠান থেকেই প্রথমবারের মতো আনুষ্ঠানিক ভাবে তার নির্বাচনি প্রচারণা শুরু হয়। তার পিতা ১৯৭৪ সালে শৈলকুপা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের শরীরচর্চা শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন এবং এর আগে কাতলাগাড়ী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে কিছুদিন একই পদে শিক্ষকতা করেন।

শৈলকুপার বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ডে তাঁর পিতার ভূমিকা ছিল প্রশংসনীয়। শৈলকুপা বালিকা বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠায় তার পিতার অগ্রণী ভূমিকা ছিল এবং এ বিদ্যালয়ের পরিচালনা পরিষদের সভাপতি ছিলেন দীর্ঘ ১৭ বছর। তার পিতা ১৯৭৩ সাল থেকে ১৯৯৯ সাল পর্যন্ত দীর্ঘ ২৬ বছর শৈলকুপা উপজেলা কৃষকলীগের সভাপতি ছিলেন এবং সাবেক শৈলকূপা ৪ নং ইউনিয়ন (বর্তমান পৌরসভা) পরিষদের প্রথম বিনাপ্রতিদন্ধিতায় নির্বাচিত ভাইস চেয়ারম্যান ছিলেন এবং একই শাখার বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন। তাঁর পিতা নিজ এলাকায় আতিয়ার রহমান পাঠাগার নামে একটি পাঠাগার ও উত্তর পাড়া মডেল একাডেমি নামে একটি স্কুল প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন। তাঁর পিতার স্মৃতিকে ধরে রাখতে শৈলকুপা নাগরিক কমিটি একটি স্মরণসভা ও স্মরণিকা প্রকাশ করেন।

বিশিষ্ট সমাজসেবক মোঃ মাহিদুর রহমান মাসুদ সাতগাছি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে পরালেখা শেষ করে শৈলকুপা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তি হয় এবং ১৯৭৯ সালে স্কুল জীবন থেকেই বিভিন্ন মিছিল মিটিংয়ের মধ্যে দিয়ে ছাত্র রাজনীতিতে যুক্ত হয়ে পড়ে। তারপর ১৯৮৩ সালে এস,এস,সি পাস করে ১৯৮৩-৮৪ সালে ঝিনাইদহ কে,সি কলেজে ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের ব্যানারে জনাব আব্দুল হাই (বর্তমান ঝিনাইদহ -১ আসনের মাননীয় সাংসদ, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী জনাব আব্দুল হাই) এর বলিষ্ঠ নেত্রীত্বে এরশাদ বিরধী আন্দোলনের মাধ্যমে রাজনীতিতে সক্রিয় হোন। এবং সকল আন্দোলন সংগ্রামে নিজেকে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে নিয়োজিত করেন। এরপর রাজনৈতিক পেক্ষাপটে এলাকা ছাড়তে বাধ্য হোন এবং যশোর ঝিকরগাছা থেকে এইস, এস, সি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হোন। পরবর্তীতে ঠিকাদারি ব্যবসায় নিজেকে নিয়োজিত করেন তারপর দীর্ঘ বিরতি নিয়ে দুঃখী মাহমুদ কলেজে স্নাতক ভর্তি হয়। এরশাদ বিরধী আন্দোলনের পর বিএনপি ক্ষমতায় আসলে তখন থেকে এখন পর্যন্ত ঝিনাইদহ — শৈলকুপার প্রতিটা আন্দোলন সংগ্রামে নিজেকে নিয়োজিত রাখেন। ছাত্র রাজনীতি করাকালে শৈলকুপা ছাত্রলীগ — ছাত্রশিবির এর সংঘর্ষে ছাত্রলীগের পক্ষে ছাত্র শিবির কে পরাজিত করতে সক্ষমতা অর্জন করেন। পরবর্তিতে ৯০ এর দশকে শৈলকুপা বিএনপি জামাতের বিরুদ্ধে তার নিজেস্ব বিশেষ বাহিনী দ্বারা নেত্রীত্ব দিয়ে আন্দোলন সংগ্রাম গড়ে তোলেন এবং পরবর্তীতে বিএনপি পুনঃরায় ক্ষমতায় এলে ২০০০ সালে বিশেষ ক্ষমতা আইন এ ৩৭ দিনের জেল প্রদান করেন এবং রিমান্ডে নিয়ে অমানুষিক নির্যাতন করে।

উল্লেখ্য সাবেক এম,পি প্রয়াত ডাঃ কাজী খাদেমুল ইসলামের ছোট ভাই এবং তার পিতা এবং শশুর এর ঘনিষ্ঠ বন্ধু ত্বতকালীন বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের যুগ্ন-সচিব প্রয়াত কাজী শামসুজ্জামান (ফুল কাজী) তার নিবিড় তত্ত্ববধানে জেল থেকে ছাড়া পান এবং শর্তমতে তারপর তিনি ঢাকা চলে যান। তারপর বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ শৈলকুপা উপজেলা শাখায় যোগদান করেন, (তখন নাসির খান থানা যুবলীগের আহব্বায়ক ছিলেন)। থানা যুবলীগের পরবর্তী সম্মেলনে বন্ধুবর স,ম রানাউজ্জামান বাদশাহর স্বপক্ষে নির্বাচনে সার্বিকভাবে সহযোগিতা করার মধ্যে দিয়ে জয়লাভ করেন এবং ঐ কমিটিতে সিনিয়র সহ-সভাপতি হোন এবং ২০০৪ সালে আওয়ামীলীগ দলকে সুসংগঠিত করতে শৈলকুপা পৌরসভায় ৪ নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদপ্রার্থী হোন। উল্লেখ্য তত্বকালীন সময় একমাত্র তিনি কাউন্সিলর এবং কাজী আশরাফুল আযম মেয়র পদে আওয়ামীলীগ থেকে মনোনিত প্রার্থী ছিল এবং ততকালীন সময়ে আওয়ামী লীগ বিরধী দলে থাকায় দলটিতে অর্থনৈতিক ভাবে দেখভাল করার কেওছিলা ঠিক ওই মুহুর্তে তিনি ঢাকা থেকে চাকরি করে অর্থ উপার্জন করে তখনকার ছাত্রলীগ, যুবলীগ নেতা কর্মীদের নিজের সর্বোচ্চ দিয়ে সহযোগিতা করেন। যেটা এখন পর্যন্ত বিদ্যমান রয়েছে ১/১১ সময় শৈলকুপার রাজপথের মিছিল মিটিংয়ে বলিষ্ঠ নেত্রীত্ব দিয়ে সংগঠনকে উজ্জীবিত করতে সহযোগিতা করেছে। কিন্তু এতো ত্যাগ তিতিক্ষার পর ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে কিছুদিন যাওয়ার পর দুর্নিতির সাথে আপোষ করতে নাপেরে ২০১০ সালে আবার ঢাকার উদ্দেশ্যে জীবিকার জন্য চাকরিতে যোগাদান করেন এবং কিছুদিন চাকরি করার পর ২০১৪ সালের নির্বাচনে বিএনপির জামাতের সহিংসতা প্রতিরোধে পুনরায় চাকরি ছেড়ে চলে আসেন এবং প্রতিটা আন্দোলনে পরোক্ষভাবে নিয়োজিত ছিলেন। উল্লেখ্য ২০১৪ সালে আগের তুলনায় অনেক বেশি কর্মী সমর্থক দৃশ্যমান ছিলেন! তখন হয়তো এই দুঃসময়ের নিবেদিত সৈনিকগুলো না থাকলেও দলের কিছু আসেযায় না। যাইহোক, এই ত্যাগি নেতার জেষ্ঠ পুত্র মোঃ সাইমুম রহমান শাওন ছাত্র রাজনীতি শেষ করে, আওয়ামী যুবলীগ শৈলকুপা পৌর শাখার রাজনীতির সাথে পতোক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত এবং এম,পি পুত্র ব্যারিস্টারি অধ্যায়নরত তানভীর হাই জিসান এর ঘনিষ্ঠ বন্ধু ও এম,পি মহোদয়ের একনিষ্ঠ আস্থাভাজন। মোঃ মাহিদুর রহমান মাসুদ বর্তমান এম,পি জননেতা জনাব আব্দুল হাই সাহেবের ঘনিষ্ঠ স্নেহতুল্য ছোট ভাই হওয়া সত্ত্বেও তার ১৪ মাস মন্ত্রী থাকা কালীন সময়ে একবারের জন্যও কোনো প্রকার দতবির নিয়ে ততকালীন মন্ত্রী মহোদয়ের কাছে যায়নি। তার এই বর্ণাঢ্য জীবন পর্যালোচনা করলে এটাই প্রমাণিত হয় যে, তিনি তার পিতার মতো সৎ, ত্যাগি এবং পরোপকারী ব্যক্তি। তিনি আসন্ন শৈলকুপা পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী! তার জন্মদিনে আগামীর জন্য অসংখ্য শুভকামনা, ভালোবাসা ও সাফল্য কামনা করছেন এলাকাবাসী।

SHOW_MORE
0
36
https://avalanches.com/bd/jhenida__553476_07_07_2020

ইউটিউবার ইভান সাব্বিরের এগিয়ে যাওয়ার গল্প


কেউ নিজের গল্প লিখে হেরে যায়,আবার কেউ তার নিজের স্বপ্নে দেখা সেই গল্পটাকেই বাস্তবায়ন করার জন্য জীবিত দেহের সাথে লড়াই করেই যায়,বুকে প্রত্যাশা একটাই আমার জয় একদিন হবেই, হ্যা আমি ভুল, হ্যা আমি কিছুই না আপনার জন্য, আমার কাছে আমি অনেক দামি,আমাকে লড়াই করতেই হবে আমার গল্প বাস্তবায়ন করার জন্য, ১০০টা মানুষের ঘৃনা করাই স্বাভাবিক,কারন তুমি তখন বুঝে নিবে সাফল্য তোমার হাতের মুঠোয়,হ্যা হতে পারে আমি অনেক ছোট ইউটুবার ,হতে পারে ভালো কন্টেন্ট উপহার দিতে পারি না,তবুও চেষ্টা করি, প্রতিধান চাচ্ছি না ভালোবাসা চাচ্ছি সেটা দিতেও আপনারা ব্যর্থ,

আপনারা শুধু আমার খারাপ দিকটাই দেখে গেলেন, কই আমি ১বছর দরে কোন নতুন কন্টেন্ট বানাচ্ছি না, আপনারাতো কেউ জিজ্ঞাস করলেন না, সাব্বির কোথায় বিলিন, ইভান সাব্বির নামক চ্যানেলটা আজও স্তব্ধ, আমি জানি আপনারা গল্প শুনতে ভালোবাসেন,তাই বল্লাম,

আসল কথায় আশি


★ইউটুবার হওয়ার স্বপ্নটা অনেক আগে থেকেই, প্রথম যাত্রা শুরু Aug-11-2017,বেশ সময়টা ভালোই কাটছিলো,আমি তেমন তখন জানতাম না,ইউটুবার হওয়ার জন্য অনেক টাকার প্রয়োজন,

আমার জন্ম মধ্যবিত্ত একটা পরিবারে,টাকা পয়সা ও তেমন নেই,আমার এক স্কুলের বন্ধুর সাথে শেয়ার করলাম, সে বল্লো তারো ইউটুবার হওয়ার স্বপ্ন, তখন আমার সাহসটা আরো বেরে গেলো,প্রথম আমি আর সে মিলে একটা গান করলাম ১৫০০টাকা দিয়ে, চাদপুরে তেমন ইউটুবার ছিলো না,Samz vai এর কাছে গিয়েই গানটি করা, তারপর আমার বন্ধুর চাচা একটা কেমেরা আনে বিদেশ থেকে, ওই ক্যামরা দিয়ে ভিডিও শুরু করলাম,ইডিট ও পারতাম না, কারন আমার কাছে তেমন ভালো ফোন ও ছিলোনা,ইডিট করাতাম ৫০০-৭০০টাকা দিয়ে, ধীরে ধীরে চাদপুরে আমাদের চ্যানেলটা ভালোই পপুলার হচ্ছিলো, ৬-৭টা ভিডিও করার পর ভালোই রেস্পন্স পেয়েছিলাম, হঠাৎ করে একদিন আমার আর বন্ধুর মাঝে সমস্যা হয়, তখন আমার ইউটুব চ্যানেলটি তার মোবাইলফোনে লগিন ছিলো,আমার সব কথাই তাকে শেয়ার করতাম, এমনকি আমার ফেসবুক,ইউটুব,পাসওয়ার্ড টাও তাকে বলে দিয়েছিলাম,সে একদিন আমার ফেসবুক, ইউটুব এর সকল পাসওয়ার্ড পাল্টে দেয়,এবং তার কেমেরা দিয়ে ভিডিও করার ফলে এগুলো করেছিলো, পড়ে আমি সব জানতে পাড়ি,অনেক কষ্ট পেয়েছিলাম, সে আমাকে এটাও বলে ওই চ্যানেলে আমার কোন অধিকার নেই,ভেংগে পরেছিলাম, কি করবো আমি এখন, আমারতো কিছুই নেই, মোবাইল ফোনটাও তেমন ভালো না, পিছনের ক্যামেরাটাও নষ্ট, সামনেরটা ঝাপসা,শুধু ১-২টা এ্যাপস ডাউনলোড দেওয়া যায়, এমনকি মোবাইলটা আমার ও ছিলো না, আম্মুর, আমার বাসার পাশে একটা ভাই ছিলো, রানা নামের আমাকে বেশ আদর করতো,তার একটা মোটামোটি ভালো ফোন ছিলো, সেটা দিয়ে তাকে বলে একটা চ্যানেল খুল্লাম, ১৮টা সাবস্ক্রাইব বানিয়েছিলাম খুব কষ্ট করে, হঠ্যাং সেই চ্যানেলের পার্সওয়ার্ড টাও ভুলে যাই,২-৩মাষ কিছুই করি নাই,আম্মুর সেই ফোনটা দিয়েই আবার একটা চ্যানেল খুলি, Stromz vai নামক আমার অনেক কাছের ভাই,তার কাছে একটা গান রেকর্ড করি, গল্পটা রেপ গানের দিয়ে শুরু হলেও রেপ গান করা ছেরে দিয়েছিলাম, কারন এটা সবার পছন্দ না,ক্লাসিকেল গান করা শুরু করলাম, ২-৩টা গান করলাম, তেমন ভিও নেই, সাবস্ক্রাইব ও নেই, আমাকে নিয়ে সবাই টিটকারি শুরু করলো, স্কুলে গেলে সবাই বলে এই বাল ছাল করে জিবনেও কিছু করতে পারবি না, খুব কষ্ট লাগতো,তবুও হালছারিনি, Samz vaiএর সাথে ২-৩Ta গান করি,৩টাই ভাইরাল হয়,সাবস্ক্রাইব বাড়তে থাকলো, Vajan আমার খুব ভালো বন্ধু ছিলো, অল্পদিনের পরিচয় হলেও আমাকে অনেক হেল্প করেছে, তাকে নিয়ে ২টা ভিডিও বানাই, ২হাজার করে ৪হাজার টাকা দিয়ে, আমার কাছে তখন আর টাকা নেই, আবার টাকা যোগান শুরু করলাম, লাষ্ট ১বছর আগে একটা মিউজিক ভিডিও করি,


আপনাদের দোয়ায় ২মিলিয়ন +ভিউ হয়েছে, ইচ্ছাটা আরো বেড়ে গেলো,কিন্তু কাজে লাগানোর কোন পথ ছিলো না, কারং আমার কেমেরা, ফোন কোনটাই ছিলো না,আমার ভিডিও গুলো ছারতাম অন্য মানুষের ফোনে আমার চ্যানেল লগিন করে,

সামনে Ssc পরিক্ষা, প্রস্তুতি নিতে থাকলাম, রেজাল্ড এর পর ঢাকায়, একটি কলেজে এডমিট হই,কাউকেই চিনতাম না,তবে ফেসবুকে পরিচয় Sazid Sazu ভাইয়ের সাথে প্রথম কাজ ঢাকায় আমার,অনেক ভালো মনের একজন মানুষ ওনি,আমাকে অনেক হেল্প করেছে,আমার সবটা দিয়েও আপনার উপকারের প্রতিদান দিতে পারবোনা ভাই,আজ আমার এই চ্যানেলের ১.৫বছর পূর্ন হয়েছে, মাএ ২-৪মাস খেটেছিলাম, আর ১বছর প্রায় কিছুই করিনি,কারন আমার কাছে এখনও ভালো ফোন, ক্যামেরা দুটোর একটাও নেই, অনেক সময় অনেকের ক্যামেরা চাইতে গিয়ে অপমান ও হয়েছি,আমার আফসোস নেই,শুধু এতোটুকুই বলতে চাই,অন্নৈর জিনিস কখনো নিজের মনে করো না,

ভালো একটা কলেজে ভর্তি হওয়ার ফলে তেমন সময় ও পাই না,তাই নতুন কিছু উপহার ও দিতে পারছি না,আগের মতো মানুষ আর শেয়ার তো দূরের কথা সার্পোট ও দেয় না,তরুনদের ভালোবাসুন,ওরাউ ওদের সর্বোর্চটা দিয়ে আপনাকে ভালোবাসবে,


ভালোবাসা নিবেন

ভালোলাগলে বেশি বেশি শেয়ার দিবেন

ধন্যবাদ

SHOW_MORE
0
275
https://avalanches.com/bd/jhenida__136695_22_04_2020

রানা আহম্মেদ অভি, ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃ- করোনা মহামারীতে বাজার আজ জনশূন্য, সর্বসাধারণের কাজ আজ স্তব্ধ। আতঙ্ক আর প্রাদুর্ভাবে অশান্ত জনজীবন। এই মহামারী কালের মানবতার ফেরিওয়ালা হয়ে মানুষদের বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে ত্রাণ বিতরণ করেছেন ঝিনাইদহার শেখপাড়া দুঃখী মাহমুদ কলেজের সহ-সভাপতি মোঃ সোর্হাত হাসান মামুন।


জানা যায়, করোনা মহামারী এই পরিস্থিতিতে হতদরিদ্র ও কর্মহীন ব্যাক্তিদের বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে চাল,ডাল,আলু,সাবান নীরবে পৌঁছে দিয়েছে।


এই বিষয়ে আসাদুজ্জামান আশা বলেন, দেশের এই থমথমে পরিবেশে যাদের জীবনযাত্রা থেমে গেছে তাদের পাশে মামুন বার বার ত্রাণ বিতরণ করে চলেছে। আমরা সবাই তার এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানায়।


ছাত্রলীগ নেতা মামুন বলেন, অসহায়দের পাশে থাকার একটু চেষ্টা মাত্র, সবার কাছে আমি দোয়া প্রার্থী সকলে আমার জন্য দোয়া করবেন যেন আমি সবার আরও কাছে থেকে সাহায্য করতে পারি। সামনে রমজান এই পবিত্র মাসে প্রায় অর্ধশত পরিবারের মাঝে এক সপ্তাহ করে খাবার এবং ইফতার বিতরণের ইচ্ছা আছে। আসুন সরকার আমাদের যে দিকনির্দেশনা দিয়েছে আমরা সবাই সেটা মেনে চলি।


ত্রাণ বিতরণের সময় উপস্থিত ছিলেন আশা, রানা, স্বাধীন, রাজন সহ অনেকে।

SHOW_MORE
0
345
https://avalanches.com/bd/jhenida__123549_20_04_2020

কোভিট-১৯ এর প্রাদুর্ভাবে নিস্তব্ধ সারা বিশ্ব। করোনা ভাইরাসের এই আতঙ্ক প্রাদুর্ভাব থেকে রক্ষা পেতে ঝিনাইদাহের শৈলকূপা উপজেলার নিত্যনন্দপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের জন সচেতনতা সহ মাস্ক এবং সচেতন লিফলেট বিতরণ করেছেন স্থানীয় নিত্যনন্দপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের একাংশ।


সোমবার (২০ এপ্রিল ২০২০) দরিদ্রদের ও নিম্নআয়ের মানুষদের মাঝে মাস্ক বিতরণ ও সকল জনসাধারণকে লিফলেট বিতরণ করেছেন ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক শামিমুল ইসলাম স্বাধীন সহ নেতাকর্মীরা।


এই বিষয়ে ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক স্বাধীন বলেন "গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের দেওয়া সর্তকতা ও দিকনির্দেশনা মোতাবেক চললে আমাদের মাঝে কোভিড-১৯ ছাড়ানো সম্ভবনা খুবই কম তাই আসুন আমরা ঘরে থাকি, আবার দেখা হবে আমাদের সুস্থ শহরে সুস্থ বাংলাদেশে "


মাস্ক এবং সচেতন লিফলেট বিতরণের কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন সাধারন সম্পাদক শামিমুল ইসলাম স্বাধীন, শিমুল, সবুজ, শেখ সামাদ, শাহিনুজ্জামান সাহস সহ অনেকে।

SHOW_MORE
0
495
https://avalanches.com/bd/jhenida__94131_15_04_2020

অচল সবই সচল আওয়াল ভাইয়ের সৈনিক


রানা আহম্মেদ অভিঃ করোনা আতঙ্কে সারা দেশ, কেউ বলে ছোঁয়াচে, কেউ বলে মহামারী। হৃদয়ে তার মুজিব কিন্তু সময়ে সবে হবে সজিব।


রাজপথে আজ শুধু সেচ্ছাসেবীরা ব্যতীত আলোচনায় নেই কেউ, কোথায় ভিডি নুর, কোথায় জিয়া খালেদা, কোথায় সন্ত্রাসী মৌলবিরা। আজ রাজপথে ছাত্রলীগ, আওয়ামীলীগের কর্মী ব্যতীত নেই কেউ৷ রাজপথকে আপন ভেবে করোনা কে না বলে ছুটে চলেছে লক্ষ প্রাণ এদেশে।


ঝিনাইদহ জেলার কিংবদন্তী আব্দুল হাই এমপি এর আদেশে সেচ্ছাসেবীর কাজ করে চলেছে সারা ঝিনাইদহ জুড়ে ছাত্রলীগ। সেই ছাত্রলীগের এক নক্ষত্রের নাম আব্দুল আওয়াল (সাধারণ সম্পাদক,জেলা)। গত কিছুদিন ধরে দেখা যাচ্ছে জেলা বিভিন্ন স্থানে ত্রাণ বিতরণ করেছেন আব্দুল হাই এর কনিষ্ঠ নেতা আব্দুল আওয়াল ভাই।


আজ এই অচল অবস্থার মাঝে নিজেদের অস্তিত্ব এবং কোভিট-১৯ এর বিরুদ্ধে যুদ্ধের জন্য মাঠে আওয়াল ভাই এর সৈনিকেরা। কখনো ফোনে, কখনো মেসেজে কখনো রাজপথে, কখনো আবার ফেসবুক গ্রুপে।


ফেসবুক গ্রুপের মাঝে তথ্য সংগ্রহ করে সারা ঝিনাইদহ সেচ্ছাসেবীর কাজ সচল করে রেখেছে ঝিনাইদহ আওয়াল ভাই এর সৈনিকেরা।


জানা যায়, আব্দুল আওয়াল ভাই নিজে থেকে জেলার গুরুত্বপূর্ণ স্থান সহ শৈলকূপা থানার সকল ইউনিয়ন প্রায় ঘুড়ে ঘুড়ে ত্রাণ বিরতণ করেছেন এবং আরোও ছিলো ঝিনাইদহ ছাত্রলীগের সকল নেতা কর্মী৷ আওয়াল ভাই এর এমন উদ্যোগ দেখে সারা ঝিনাইদহ জুড়ে ছাত্রলীগ এর জন্য ভালোবাসা বেড়ে উঠেছে প্রতিটি মানুষের হৃৎপিন্ডে।

SHOW_MORE
0
216
https://avalanches.com/bd/jhenida_free_mask_distribution_by_sheikhpara_youth_society_76915_12_04_2020


Rana Ahmmed Ovi:- The Members Of Sheikhpara Youth Society Distribution free masks to poorest human beings of society To defend in opposition to The Corona Virus.


Saturday April 1, 2020 Free Masks were distributed by some talanted students of different universities under the direction of UNO Shailkupa-Md. Saifur Rahman.


Khaled Hasan Rabu Informed "We want the blessings of everyone in the society and sincere support from the wealthy so that we can continue our program in future.."


The Student of Jahangirnagar University- Md. Sumon Joarder, Bangladesh Agriculture University- Khalid Hasan Rabu and Asif Mustaba, Dhaka University - Md Ainal Hossain and SM Siam, Jagannath University - Md. Rezwanul Islam, Rajshahi University - Shipon, Rakibul Islam Rakib, Shafayat, Arshi And Rana Ahmmed Ovi Were Presented during distributing

SHOW_MORE
0
354
https://avalanches.com/bd/jhenida__57536_06_04_2020
https://avalanches.com/bd/jhenida__57536_06_04_2020


রানা আহম্মেদ অভিঃ-

বসন্তপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ২০০৫-২০১৯ শিক্ষাবর্ষের কিছু শিক্ষার্থীদের উদ্যোগে এবং শৈলকূপা উপজেলার নির্বাহী অফিসার এর সহযোগিতায় ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছে। রবিবার করোনা মহামারিতে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর মাঝে এই ত্রাণ বিতরণ করা হয়।


ত্রাণ বিতরণ করার সময় উপস্থিত ছিলেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ঝিনাইদহ ছাত্র কল্যাণ সমিতির সাবেক সভাপতি মোঃ সুমন জোয়ার্দার, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের খালিদ হাসান রাবু ও আসিব মুসতবা, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিপন আহম্মেদ, জবির রেজওয়ান, ঢাবির আইনাল হোসাইন ও এস এম সিয়াম, ইবি ছাত্রলীগের সাবেক নেতা রাসেল জোয়ার্দ্দার ও তার ভাই রুবেল জোয়ার্দ্দার সহ তৌফিক, পলাশ, আশিক, উজ্জল, আলমগীর জোয়াদ্দার, সানি (দহন), জুয়েল রানা হিমু, আরশি, সাফায়েত, সিহাব, ফেরদৌস, নাজমুল সহ আরো অনেকে।


ত্রাণ সামগ্রী হিসেবে তাদের কাছে চাল, ডাল, সয়াবিন তেল, সাবান ও নিত্যপ্রয়োজনিয় জিনিস বিতরণ করা হয়৷ কর্মসূচিতে ত্রাণ সামগ্রী নিতে এসেছিলেন শেখপাড়া, পদমদি, চরপাড়া সহ বিভিন্ন গ্রামের মানুষ।


জনসমাগমের এই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী খালিদ হাসান রাবু কে জিজ্ঞাসা করলে তিনি জানান "সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার চেষ্টা করা হয়েছে কিন্তু সঠিক ভাবে আমরা সফল হতে পারিনি " খালিদ হাসান রাবু আরও জানান আগামীতে তাদের আরও কর্মসূচি বাস্তবায়নের ইচ্ছে আছে আগামীতে

সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখার কোন ত্রুটি হবে না।

SHOW_MORE
0
505
OTHER_NEWS Bangladesh

চোখের ‘অঞ্জনি’ দ্রুত সারাবেন যেভাবে


অঞ্জনি বা আইলিড সিস্টের সমস্যায় কমবেশি সবাই ভোগেন। সাধারণত চোখে নোংরা জমেই এ সমস্যার সৃষ্টি হয়। চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় একে বলা হয় স্টাই বা হরডিওলাম। চোখে অনেক ক্ষুদ্র তেল গ্রন্থি আছে। বিশেষ করে চোখের পাতার উপর। মৃত কোষ, ময়লা, তেল জমে ওই গ্রন্থির মুখগুলো বন্ধ হয়ে যায়। গ্রন্থির ভেতরে জন্ম নেয় ব্যাকটেরিয়া। ফলে চোখে অঞ্জনির মতো সমস্যা হয়।

অঞ্জনি তেমন কোনো বড় সমস্যা না হলেও দীর্ঘদিন ফেলে রাখলে এটি বড় আকার নিতে পারে। এতে চোখের মারাত্মক ক্ষতি হওয়ার ঝুঁকি থাকে। তবে অঞ্জনি হলেই যে তা সারাতে ওষুধের প্রয়োজন তা কিন্তু নয়। চাইলে কয়েকটি ঘরোয়া উপায়েই কমিয়ে ফেলা যায় অঞ্জনির সমস্যা। জেনে নিন অঞ্জনি সারানোর ঘরোয়া উপায়-

>> নরম কাপড় বা রুমাল দিয়ে গরম সেঁক দিন। তবে বেশি চাপ দেবেন না। এতে সংক্রমণের ঝুঁকি কমবে। আবার গ্রন্থির মুখে জমে থাকা তেলও শুকিয়ে যাবে। এমনকি অঞ্জনির ব্যথাও দ্রুত কমবে।

>> গরম টি-ব্যাগও ব্যবহার করতে পারেন অঞ্জনি সারাতে। কালো চায়ের ব্যাগ এ ক্ষেত্রে বেশি কার্যকরী। কারণ এতে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট থাকে। যা চোখের ফোলাভাব কমতেও সাহায্য করে।

>> চোখের পাতায় খাঁটি ক্যাস্টর অয়েল লাগাতে পারেন। এতে ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণের ঝুঁকি কমে।

>> পেয়ারা পাতাও অঞ্জনি সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করে। এজন্য শুকনো পেয়ারা পাতা অল্প গরম করে নরম কাপড়ে জড়িয়ে চোখের পাতায় বুলিয়ে নিন। এতে মিলবে স্বস্তি। অঞ্জনির সমস্যাও দ্রুত কমবে।

>> অঞ্জনির সমস্যা হলে চোখে বিভিন্ন প্রসাধনী ব্যবহার এড়িয়ে চলুন। না হলে প্রসাধনী বা ব্রাশের মাধ্যমে আক্রান্ত স্থানে ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ ঘটতে পারে।

এসব ঘরোয়া উপায়েও যদি চোখের অঞ্জনি না কমে সে ক্ষেত্রে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।


SHOW_MORE
0
5

আজকের বিষয়: চোখের এলানি ।

যেমন ক্যাস্টর অয়েল ব্যবহার করে অতি সহজে চোখের আঞ্জনি দূর করা সম্ভব। ক্যাস্টর অয়েলে রয়েছে প্রদাহ দূর করার ক্ষমতা। আক্রান্ত চোখে প্রথমে গরম ভাপ নিন ১০ মিনিট। তার পর একটি কটন তুলোর বলে ক্যাস্টর অয়েল মাখিয়ে আলতো করে ধরে থাকুন চোখের পাতায়।

0
1

"Hamari Pahchan: A Guiding Light for the Elderly


In a world bustling with rapid changes, Hamari Pachan stands as a beacon of compassion and support for the elderly. This remarkable organization embraces the wisdom and experience of our seniors, offering a helping hand when they need it most. With services ranging from healthcare assistance to companionship programs, Hamari Pachan creates a nurturing environment where the elderly can thrive. Every act of kindness reverberates through generations, reminding us of the enduring importance of caring for those who laid the foundation of our society. In a testament to humanity's interconnectedness, Hamari Pachan illuminates the path towards a brighter future for all."

SHOW_MORE
0
20
https://avalanches.com/bd/rajshahi_eampa_cheat_center6719781_07_07_2023

E&A Cheat Center

-----


We offer cheats for tons of games! Such as Valorant, Fortnite, and Gorilla tag cheats. We hope to get more cheats for you guys soon!

-----

We will provide you with a full refund if you don't get the product to work.

-----

Join now: https://discord.gg/fUgTpuM4Zd

SHOW_MORE
0
17
https://avalanches.com/bd/chittagonga_ummey_salma_raaya_born_september_8_2004_is_a_bangladeshi_writer_kn6719779_06_07_2023

Best Books & Series Collections of Ummey Salma Raaya


Ummеy Salma Raaya is a Bangladеshi writer, known for hеr rеmarkablе contributions to contеmporary litеraturе. She was born on 8 September, 2004 from Bagеrhat, Bangladеsh. Raaya bеgan hеr writing journеy in 2018 and quickly gainеd rеcognition for hеr poignant and еvocativе poеms.


Sincе еmbarking on hеr writing carееr, Ummеy Salma Raaya has pеnnеd numеrous captivating poеms and thought-provoking books that havе rеsonatеd with rеadеrs of all agеs. Hеr poеtry showcasеs hеr dееp undеrstanding of human еmotions, sociеtal issuеs, and thе complеxitiеs of lifе.

Collеction of Poеms


  • Ek Jug Porе - এক যুগ পরে (2017)
  • Osrushikto - অশ্রুসিক্ত (2018)
  • Pathoshishu - পথশিশু (2020)
  • Shadhinota Ki Etoi Sohoj - স্বাধীনতা কী এতই সহজ (2022)
  • Samajpati - সমাজপতি (2022)
  • Dеyal - দেয়াল (2023)
  • Vanga Prachir - ভাঙা প্রাচীর (2023)
  • Mukhoshеr Aralе - মুখোশের আড়ালে (2023)

Collеction of Books


  • Shikal Bеri (2019)
  • Tеpantorеr Jotsna (2020)
  • Kholnayokеr Chithi (2021)
  • Manushkhеko (2021)
  • Calling Bеll (2022)
  • Neel Chokh (2023)


Series


  • Char Chor (2023)


Dеspitе hеr young agе, Raaya has alrеady madе an indеliblе mark on thе litеrary landscapе of Bangladеsh and hеr futurе еndеavors arе promising.


Ummеy Salma Raaya continuеs to writе, captivating rеadеrs with hеr words and pushing thе boundariеs of Bangladеshi litеraturе. Hеr unwavеring dеdication to hеr craft, couplеd with hеr ability to еvokе profound еmotions through hеr work, solidifiеs hеr status as a prominеnt figurе in contеmporary litеraturе.)

SHOW_MORE
1
131
https://avalanches.com/bd/bogra_hamari_pahchan_ngos_vision_education_for_all_6716044_07_06_2023

Hamari Pahchan NGO’s Vision: Education for All

What is Hamari Pahchan NGO? It is a non-profit organization that is dedicated to its vision of Education for All. The NGO was founded with the belief that education is a fundamental right that should be accessible to everyone.

How did the vision of Education for All come about? The founders of the NGO recognized the disparities that existed in education and the limited access to education in impoverished communities. They wanted to create a platform that provided equal educational opportunities to all, regardless of social or economic backgrounds.

The significance of education cannot be overstated. Education can lift individuals out of poverty, improve health outcomes, and drive economic growth. It is also a vital tool in promoting gender equality and reducing social disparities.However, despite the importance of education, there are challenges in achieving the vision of Education for All. Poverty, lack of resources, and cultural barriers can all hinder access to education. Hamari Pahchan NGO aims to address these challenges and make quality education accessible to all.

The Impact of Education

Education is the foundation of every society, and its impact is far-reaching. It plays a significant role in not just enhancing our cognitive skills but also in improving overall well-being. Education is the key to unlocking a brighter future and creating empowered citizens. Hamari Pahchan NGO recognizes the importance of education and is committed to ensuring that it is accessible to everyone.

Education has the power to reduce poverty by providing individuals with the tools they need to build a better life for themselves and their families. It increases earning potential and job opportunities and empowers individuals to become self-sufficient. By educating women and children, we can reduce poverty rates and build stronger communities.

Moreover, education has a direct impact on improving health outcomes. Educated individuals are more likely to make informed decisions about their well-being and adopt healthier lifestyles. They are also more likely to seek medical attention when needed and adhere to treatment plans, leading to better health outcomes overall.Education is a catalyst for economic growth. It provides individuals with the necessary skills and knowledge to participate in the workforce, leading to an increase in productivity and innovation. It also promotes entrepreneurship and creates job opportunities, leading to economic growth for communities and the country as a whole.

Finally, education plays a critical role in promoting gender equality. Education empowers women and girls, giving them the tools they need to become leaders in their communities and the workforce. It also leads to a reduction in gender-based violence and discrimination, creating a more equal and just society for all.

In conclusion, education is a fundamental right that should be accessible to everyone. By improving education access and quality, we can create empowered communities and build a brighter future. Hamari Pahchan NGO is doing its part to make this vision a reality, but it takes a collective effort to achieve Education for All. Let’s work together to create a better world through education.

The Work of Hamari Pahchan NGO

Hamari Pahchan NGO is an organization that has made it their mission to provide education to people who are unable to get it themselves. To achieve this goal, Hamari Pahchan NGO’s Drishti Project is making a significant contribution to education by bridging the gap between privileged and underprivileged children in India. Through interactive sessions, distribution drives, and vocational training programs, the organization empowers children and equips them with essential skills for a brighter future. They have reached out to over 11,250 children, conducted 3,000+ distribution drives, and introduced the “Gadgetshala” initiative to enhance learning experiences.

In conclusion, Hamari Pahchan NGO is an excellent example of an organization that is doing invaluable work in helping people to achieve their dreams through education. It is essential to support their vision of providing education to all, especially to disadvantaged individuals so they can have better opportunities and a brighter future. By supporting Hamari Pahchan NGO’s efforts, we can help send a child back to school and make a meaningful impact on their education and dreams. Together, let’s ensure that every child has equal opportunities for a quality education.

The Importance of Community Support

Community involvement is at the heart of Hamari Pahchan NGO’s vision of Education for All. The success of any educational initiative depends largely on the active participation of the community. When parents, teachers, and local leaders are actively involved, the education system becomes more effective, and students are better supported.

Community support is an essential part of the organization’s initiatives. Collaboration with local schools and other organizations is also key to their success. This collaboration enables Hamari Pahchan NGO to identify and address the most pressing educational needs of the community. By working together, organizations can provide a more comprehensive approach to educational support, which yields better outcomes.

The impact of community support on the success of Hamari Pahchan NGO’s initiatives cannot be overstated. The NGO has worked hard to create strong partnerships with local organizations and community leaders, which has helped to ensure that their educational programs remain relevant, effective, and sustainable.

In conclusion, community support is key to the success of Hamari Pahchan NGO’s vision of Education for All. The organization’s community outreach and engagement efforts, along with their collaborative approach, have helped to create a culture of education, empowering underprivileged individuals to create successful futures.

Conclusion

Phew! Education for All – that’s a huge task, but certainly one that is worth achieving. To recap, we have explored the significance of education, the impact it can have on poverty reduction, health outcomes, and economic growth. We also learned about Hamari Pahchan NGO’s approach to making Education for All a reality and the importance of community support in achieving this goal.

But why should we care? The potential impact of achieving Education for All is immense. By providing education to all, we can eradicate illiteracy, reduce poverty, and promote gender equality. It can also pave the way for better healthcare and economic growth, positively impacting individuals, communities, and nations.

To support this vision of Education for All, we must extend a helping hand to organizations like Hamari Pahchan NGO. Whether through donations or volunteer work, we can contribute to their efforts and make a significant impact. Remember, every little step counts.

On a final note, let’s make a conscious effort to promote education and create a better future for ourselves and generations to come. Trust me, it’s worth it!

SHOW_MORE
0
8
https://avalanches.com/bd/rajshahi_are_you_thirsty_for_mami_get_ready_for_the_ultimate_meme_coin_experi6715787_23_05_2023

Are you thirsty for $Mami? Get ready for the ultimate meme coin experience with $MamiCoin, inspired by the unstoppable professional wrestler Rhea Ripley! Presale is open ahead of the public launch of $MamiCoin, the Binance Smart Chain-based cryptocurrency that's here to dominate the meme token world.


Token Name: Mami Coin

Symbol: $Mami

Network: BSC

Tax: 3% (1.5% Burn, 1.5% marketing)

Total Supply: 10b


But $MamiCoin is more than just a meme token. We've got an exciting roadmap ahead, including consistent marketing pushes, community competitions, partnerships, charity donations, and T1 exchange listings. Together, we'll take $MamiCoin to new heights!


Visit our website at https://www.thirstyformami.io

and follow us on Twitter at https://twitter.com/MamicoinBSC to stay updated.

Join our official Telegram group t.me/MamiCoinBSC and be part of the $Mami revolution!


SHOW_MORE
0
3
https://avalanches.com/bd/rajshahi_httpsremotemonitorservicecom6464391_07_02_2023

https://remotemonitorservice.com/

Our Mission Services Contact X Remote monitor service About Us Remote Monitor Service as a Company Dedicated to Customers and all of their computer needs. We are here as a guiding ear to help you navigate and operate computers in a proficient manner. Remote Monitor Service has 20+ years of experience in all


SHOW_MORE
0
6
https://avalanches.com/bd/shariatpur_adorn_mahin_biographic_article5690931_27_12_2022

Adorn Mahin - Biographic Article

Adorn Mahin (born: 18 May 2004) is a Bangladeshi Singer-Songwriter, Music Composer, Author, and a Multi-Instrumentalist from Bangladesh. He is The Founder, Main Vocal, Lyricist and Lead Guitarist of the Rock band named “Abyssfectus”. He is also a Founder, Owner, Lyricist and Music Composer of the Studio “Adorn Lab”.


Solo Career

Adorn Mahin is A Passionate Musician. He interested in music from an early age, in 2016 he started his musical journey. After 2020 he start his musical career as an Instrumental Artist. Performing at a variety of venues, making dozens of appearances and continuing to record new singles like; Snow with Beat(2021), Vibe of Summer(2022), Crazy Ghost(2022). Adorn has been earning the admiration and affection of fans since 2021. Since 2022 he Released his first Instrumental Album "Zero Express".


Musical Groups

Adorn and his brother panned for starting a band together. In 2022 they Named a Band called “Abyssfectus”. His brother HR Fahim is a Drummer, Co-founder and Manager of the band. And Adorn is the Founder, Main Vocal, Lyricist and Lead Guitarist of the Band.


Early Life

Tajbhir Ahmed Mahin (also know as Adorn Mahin) is a Bangladeshi Singer-Songwriter, Composer, and a Multi-Instrumentalist. He born on 18th May 2004 in Dhaka Bangladesh. Adorn Started his musical journey as an independent all-rounder musician. In a single effort he learnt to play Tabla, Drums, Guitar and Vocals.


Social Links


Facebook; https://facebook.com/AdornMahen

Instagram; https://instagram.com/adornmahin

Twitter; https://twitter.com/AdornRockzz

YouTube; https://youtube.com/@AdornMahin

SHOW_MORE
0
150